আহাদ লিও

অ্যালুমিনিয়াম কিংবা কখনও কখনও স্টিল ক্যাপ, রাবার স্কুইজ টিউব, এবং ব্যারেলের ভিতরে মোল্ড তৈরি হয়। এই মোল্ড কয়েক রঙের হতে পারে- সবুজ, নীল, কিছুটা পিঙ্গল, এবং কখনও কখনও সবুজের মধ্যেও পিংকিশ একটা ভাব থাকতে পারে। কলমের ম্যাটেরিয়াল এবং ঠিক কেমন পরিবেশে কলমটি দীর্ঘ দিন যাবৎ রাখা হয়েছিল তার উপরে নির্ভর করে এই মোল্ডের রঙ। হ্যাঁ, কিছুটা আঁচ করতে পেরেছেন হয়ত। পুরোনো এবং বিশেষকরে রাবার স্কুইজ টিউব ও অ্যালুমিনিয়াম ক্যাপের কলমগুলোতে এমন মোল্ড থাকতে পারে। আমরা যে ভিন্টেজ কলমগুলো প্রায়শই কিনে থাকি সেগুলোর মধ্যেই সাধারণত এমন মোল্ড থাকে। পুরোনো ব্রাসের পাত্র, অ্যালুমিনিয়াম কয়েন, এসব কালেক্টিবলে এমন মোল্ড দেখতে পাবেন।এখন আসি পরের কথায়, এই মোল্ড কী এমন করতে পারে?তেমন কিছু নয়। কখনও কখনও এই মোল্ডগুলো অ্যালার্জিক প্রভাব দেখাতে পারে আপনার চামড়ায়, নাকে ও চোখে। কলমে কী করে? কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই মোল্ড কালি পেয়ে নাদুসনুদুস হয়ে ওঠে! এই মোল্ড সূর্যালোক না পেয়ে দিব্যি যুগের পর যুগ টিকে থাকে কলমের ভিতরে। যেই না কলমে কালি ভরা হয়, অমনি সে নতুন যৌবনলাভ করে। সব কালির সাথে সে একই রকম রিঅ্যাক্ট করে না। যে কালিতে কার্বলিক অ্যাসিড থাকে সেই কালিতে এই মোল্ড মারা যায় (সফট কার্বোলিক অ্যাসিড এক ধরনের জীবানু নাশকও বটে)। আবার যে কালিতে কার্বোলিক অ্যাসিড বেশি থাকে সে কালির তো আবার অন্য প্যাঁকনা! বেশি কার্বোলিক অ্যাসিড যুক্ত কালি কলমে বেশিদিন ভরে রাখলে কালির অন্যান্য উপাদান এবং নিবের মেটালের সাথে সে সময়ের সাথে সাথে বিক্রিয়া করে এবং আয়রন সালফাইড তৈরি করে থাকে। বাংলা কথায় এক ধরনের লবন তৈরি হয়, ধিরে ধিরে নিবের ধাতব অংশ ক্ষয়ে যেতে থাকে, ফিডের চ্যানেলগুলোর মধ্যে সেই লবন জমেতে থাকে, জমাট বেধে যায়। নিব, ফিড, এবং ফিড ব্যারেল জমাট বেঁধে লেগে যায়, কখনও কখনও ফিডের প্লাস্টিকও বেশ দীর্ঘ সময় নিয়ে গলে যেতে পারে। তবে এই প্রক্রিয়ার জন্য বেশ লম্বা একটা সময়ের প্রয়োজন হয়ে থাকে। যাকগে কার্বোলিক অ্যাসিডের কথা! মোল্ডের কথায় আসি। যে কালিতে কার্বোলিক অ্যাসিড (সহনীয় মাত্রায়ও নেই), কিংবা অন্য কোনো ধরনের মোল্ড প্রতিরোধক কোনো উপাদান নেই সেই কালি যদি পুরোনো কলমটিতে ভরা যায়, তাহলেই কেল্লা ফতে! কী হবে? কলমের ভিতরের সেই পুরোনো সামান্য মোল্ড এক সপ্তাহের মধ্যেই নিজেকে বৃদ্ধি করে ফিড বেয়ে কলমের নিবের ডগায় চলে আসবে। মনে হবে রঙিন ভ্যাজলিন বা গ্রিজ! হাত দিয়ে ডলে দেখলে মনে হবে পেস্ট। এই মোল্ড কিন্তু শক্ত বা দানাদার সহজে হবে না। দানাদার হবে সে মৃত্যুর পরে। মারা গেলে মোল্ড সামান্য দানাদার রূপ নিতেও পারে। অত কিছু আমার জানা নেই। যা লিখছি তা নিজের বাস্তব অভিজ্ঞতা এবং হাতুড়ে রসায়নবিদ হিসেবে যে সামান্য ধারণা আছে তা থেকে। যেমন রিসেন্ট আমি বহু বছরের পুরোনো উইংসাং ৭২৮ কলমে লাল একটি কালি ভরেছিলাম। ৪ থেকে ৫ দিনের মাথায় নিবের গোড়ায় মোল্ড দেখেছি। টিস্যূ দিয়ে মুছে লিখেছি। তবে লাল কালিটা আর লাল নেই! হয়ে গেছে কমলা রঙের!! ঐ অবস্থায়ই কলমটি রেখে দিয়েছি। পরে সপ্তাহে দেখি কলমের নিবের গোড়া, মাথা সব মোল্ড কলোনিতে রুপান্তরিত হয়েছে। নিবের ডগায় গাঢ় কমলা রঙের মোল্ড, ভ্যাজলিনের মতন। আঙুলে নিয়ে কাগজে ডলে দেখি কমলা রঙ! টিস্যূ দিয়ে আগের মতই মুছে লিখতে পারলাম। এবার কিছু একটা করতেই হয়! খুব ভালো করে পরীক্ষা করে দেখি কলমের হেডের ভিতরে গ্রিন মোল্ড, স্কুইজ টিউবের মধ্যেও মোল্ড। তবে তা আর গ্রিন নেই, কমলা হয়ে গিয়েছে। এমনকি যে ভায়ালে কলমটি চুবিয়ে কালি ভরেছিলাম সেই ভায়ালের সমস্ত লাল কালি কমলা রঙের হয়ে গিয়েছে! কলমের সব খুলে সাবান পানিতে চুবিয়ে রেখেছি। নিবের বিন্দুমাত্র ক্ষতি হয়নি, ফিড চকচক করছে, স্কুইজ টিউবও এখন ক্লিন। কিন্তু অ্যালুমিনিয়াম ক্যাপের ভিতরে সবুজ রঙটা রয়ে গিয়েছে। হোয়াইট ভিনেগারে চুবিয়ে রেখেছি ২০ মিনিট। মোল্ডের দফা রফা হতে যথেষ্ট।এই মোল্ড ধ্বংস করতে ব্লিচিং মিশ্রিত পানি, ডিটারজেন্ট, হোয়াইট ভিনেগার, বেকিং সোডা ও লেবুর রস -এসব বেশ কাজ দেয়। প্লাস্টিকের ভায়ালে থাকলেই যে সব কালি নষ্ট হবে তা নয়। সব কালিতেই যে মোল্ড ফর্ম করবে, তাও নয়। তাই শুধু কালি নয়, নিজের কলমটির প্রতিও নজর দিতে হবে। আরেকটা কথা বলি, সলভেন্ট হান্ড্রেডও কিন্তু মোল্ড ধ্বংস করতে পারে কিছুটা। মোল্ড ধ্বংস করার ফলে মৃত মোল্ড একটু দানাদার রূপ নিতে পারে বাতাসের সংস্পর্শে। তবে এই মোল্ড আপনার কলমের ফিড ও নিবের তেমন ক্ষতি করতে পারবে না, কিন্তু আপনার কলমের স্কুইজ টিউবের রাবারের ক্ষতি করবে। আবারও মনে করিয়ে দিচ্ছি, কার্বোলিক অ্যাসিড অর্থাৎ যে কালিতে কার্বোলিক অ্যাসিডের মাত্রা খুব বেশি তা দীর্ঘদিন কলমে ভরে রাখলে আপনার ধাতব নিবের ক্ষতি হবে, সেই ধাতব নিবের সাথে বিক্রিয়া করে যে লবন তৈরি হবে তা ফিডের মধ্যে জমাট বেঁধে যাবে। মোল্ড এতটা ক্ষতি করতে পারবে না, তবে তা কালির ঘনত্ব বাড়িয়ে দেবে, রঙের পরিবর্তন করবে, ফিডের মধ্যে জেল বা ভ্যাজলিনের মতো জমতে থাকবে।আরও সহজ সমাধান দেই। হাতুড়ে সমাধান। কলমের টিউবে মোল্ড তৈরি হলে প্রথমে অতিরিক্ত কার্বোলিক অ্যাসিড আছে এমন কালি কলমটিতে ভরুন চুবিয়ে চুবিয়ে! আধাঘন্টা রেখে দিন। এতে মোল্ড ধ্বংস হবে, কারণ কার্বোলিক অ্যাসিড অতি উচ্চ ক্ষমতার জীবানু নাশক। এরপর, বেকিং সোডা ও লেবুর রস, হোয়াইট ভিনেগার ইত্যাদির যে কোনো তরল দিয়ে ধুয়ে নিন ভালো করে। সব শেষে অবশ্যই ফিল্টারের পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *