“হ্যান্ডরাইটিং”, “ক্যালিগ্রাফি”, “লেটারিং”, “টাইপোগ্রাফি” ও “টাইপফেস ডিজাইন ” আজকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খুব বহুল প্রচলিত কিছু শব্দ, কিন্তু এদের প্রকৃত অর্থ নিয়ে সবার মধ্যে বেশ দ্বিধা এবং মতবিরোধ আছে। এদের অনেকের অর্থই আজকাল প্রকৃত অর্থ থেকে সরে গিয়ে মানুষের মুখের প্রচলিত ভাষায় অন্যরকম অর্থ নিয়ে আবির্ভূত হচ্ছে।

প্রথমেই বলতে চাই ক্যালিগ্রাফি ও লেটারিং এর অর্থ এবং এদের মধ্যে পার্থক্য নিয়ে, আর যে সকল হাতের লেখা ক্যালিগ্রাফি বা লেটারিং(হ্যান্ডলেটারিং) এর মধ্যে পড়েনা তাকেই আমরা হ্যান্ডরাইটিং বলবো।

ক্যালিগ্রাফি

ক্যালিগ্রাফির প্রকৃত সংজ্ঞা নিয়ে মানুষের দ্বিধা এবং মতপার্থক্যের অন্যতম কারণ হলো গুগলে ক্যালিগ্রাফির সংজ্ঞা লিখে সার্চ করলে যে সংজ্ঞাসমূহ মানুষের চোখে পড়ে তা অনেকটা এমন যে “সুন্দর, সুসজ্জিত ও শৈল্পিক হাতের লেখাকেই ক্যালিগ্রাফি বলে” যা খুব সহজ ভাবেই মানুষকে দ্বিধাগ্রস্থ করছে। এখানে “সুন্দর, সুসজ্জিত ও শৈল্পিক” শব্দগুলো খুব Generalized ভাবে ব্যবহার করাতেই ক্যালিগ্রাফির মূল বৈশিষ্ট্যগুলো এই সংজ্ঞাসমূহে উঠে আসেনি, তবে অধিকাইংশ আর্টিকেলেই এটা উল্লেখ করা আছে যে কোন লেখাকে ক্যালিগ্রাফি বলা যাবে কিনা তা অনেকটাই নির্ভর করে ব্যবহৃত Writing Instrument (Broad-Edged Pen, Pointed Pen, Brush ইত্যাদি) এর উপরে। ক্যালিগ্রাফির ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে ক্যালিগ্রাফির শুরুটা হয়েছিল  Broad-Edged Pen  এর মাধ্যমে এবং এমন কলমের লেখার অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো Stroke Thickness Variation এবং ঐতিহ্যগত ভাবে সকল ধরেনের ক্যালিগ্রাফির মধ্যে (যেমন আরবি ক্যালিগ্রাফি ইংরেজি গোথিক, আইটালিক, ইউনিক্যাল, কপারপ্লেট ইত্যাদি) এই Stroke Thickness Variation এর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। হ্যান্ডরাইটিং এর সাথে ক্যালিগ্রাফির পার্থক্য খুব সহজ একটা উদাহরণের মাধ্যমে ব্যাখ্যা করা যায়: ইংরেজি কার্সিভ হ্যান্ডরাইটিং যখন সাধারণ কলম দিয়ে লেখা হয় তখন তা হ্যান্ডরাইটিং কিন্তু সেই লেখাই যখন Pointed Pen দিয়ে লেখা হয় তখন Up Stroke চিকন হয় এবং Down Stroke মোটা হয় এবং লেখাটিকে বলা হয় Copperplate Calligraphy ।

তানভীর হুসাইনের করা ইংরেজি গোথিক ক্যালিগ্রাফি। এখানে ব্যবহার করা হয়েছে একটি Broad-Edged Pen

শরীফ জুনায়েদের করা একটি ইংরেজি কপারপ্লেট ক্যালিগ্রাফি। এখানে ব্যবহার করা হয়েছে Pointed Pen

মোঃ আল আমিন পাভেলের একটি বাংলা ক্যালিগ্রাফি। এখানে ব্যবহার করা হয়েছে একটি Broad-Edged Pen

লেটারিং

লেটারিং এবং ক্যালিগ্রাফির পার্থক্যের সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো: কোনটি ক্যালিগ্রাফি ও কোনটি লেটারিং সেটা End Result এর উপর নির্ভর করেনা, নির্ভর করে কার্য প্রক্রিয়া বা Process এর উপর এবং ব্যবহৃত Writing Instrument এর উপর। লেটারিং তৈরী করার জন্য মূলত একটা বর্ণ বা Letter এর কোন অংশকে সাধারণ কলম দিয়ে একাধিক লাইন টেনে একটি আউটলাইন তৈরী করা হয় এবং মাঝের ফাঁকা অংশ কলম এর দাগের মাধ্যমে ভরাট বা Fill করা হয়। একটা ক্যালিগ্রাফিতে ক্যালিগ্রাফি টুল ব্যহহার করে যা পাওয়া যায় তা সাধারণ কলম দিয়ে আউটলাইন এঁকে মাঝের অংশ ফিল করে লেটারিং এর প্রক্রিয়ায় ঠিক একই লেখা পাওয়া সম্ভব।

তানভীর হুসাইনের করা একটি লেটারিং। এখানে ব্যবহার করা হয়েছে একটি সাধারণ ফাউন্টেন পেন।

টাইপোগ্রাফি

টাইপোগ্রাফি এর প্রকৃত বাংলা অর্থ “অক্ষর বিন্যাস সংক্রান্ত শিল্প” এর মাধ্যমেই এর প্রকৃত অর্থ বেশ ভালো ভাবে বুঝা যায়। কিছু Pre-designed Letter (ফন্ট) বা নিজের ডিজাইন করা অক্ষর ছোট-বড় করে, ডানে-বামে বা উপরে নিচে নিয়ে শৈল্পিক ভাবে সুবিন্যস্ত করে কোন লেখা বা Message ফুটিয়ে তোলার শিল্পই মূলত টাইপোগ্রাফি।

টাইপোগ্রাফি বর্তমানে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে খুব বহুল ব্যবহৃত একটি ভিজুয়াল কন্টেন্ট, কিন্তু এর সংজ্ঞা নিয়ে মানুষের মধ্যে আছে অনেক মতপার্থক্য। কেউ কেউ মনে করেন যে “কম্পিউটারে ফন্ট ব্যবহার না করে নিজের অংকন বা ডিজাইন করা অক্ষর ব্যবহার করে কোন ভিজুয়াল কন্টেন্ট তৈরী করলে শুধু তাই টাইপোগ্রাফি এবং ফন্ট ব্যবহার করা হলে তা টাইপোগ্রাফি না” যা সম্পূর্ণ ভুল। কোন প্রচলিত ফন্টের কোন বর্ণকে সুবিন্যস্ত করে সুন্দর কোন শিল্পকর্ম তৈরী করা হলে তা অবশ্যই টাইপোগ্রাফি। ফন্ট ব্যবহার করা হয়েছে নাকি নিজের ডিজাইন করা অক্ষর ব্যবহার করা হয়েছে তা এখানে মূখ্য বিষয় নয়, মূখ্য বিষয় হলো শিম্প মান বা Art Value.

তানভীর হুসাইন এর করা একটি টাইপোগ্রাফি। এখানে ব্যবহার করা হয়েছে একটি সাধারণ ফাউন্টেন পেন

মোঃ আল আমিন পাভেলের একটি টাইপোগ্রাফি। এখানে ব্যবহার করা হয়েছে এডোবি ইলাস্ট্রেটর এবং একটি ফন্ট

টাইপফেস ডিজাইন বা টাইপ ডিজাইন

টাইপফেস ডিজাইন খুব সহজ ভাষায় বলতে গেলে কোন ভাষার জন্য নতুন কোন ডিজাইন এর বর্ণ বা অক্ষর ডিজাইন করা যা বর্ণ বা অক্ষর লেখার জন্য প্রচলিত এবং অনুমোদিত ভাবে সাধারণ মানুষ ব্যবহার করবে। একজন ফন্ট ডিজাইনার ভাষা বা বর্ণের প্রচলিত রীতি মাথায় রেখে টাইপফেস ডিজাইন করে নতুন ফন্ট তৈরী করেন, যেন সাধারণ মানুষ সেই ফন্ট তাদের কাজে ব্যবহার করতে পারেন।

জেকব টমাসের টাইপফেস ডিজাইন এর একটি প্রক্রিয়া

ক্যালিগ্রাফি, লেটারিং ইত্যাদিতে ব্যবহৃত কলম

ছবি ও লেখা : মো: আল আমিন পাভেল

[email protected]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *